বাংলাদেশে ওয়াকি-টকি নিয়ে প্রশ্নের উত্তর – Walkie Talkie FAQ

সত্যি বলতে আমাদের যাদের পূর্বে ওয়াকি-টকি কেনা এবং ব্যবহারের কোন অভিজ্ঞতা নেই তারা অনেকেই ওয়াকি-টকি বা টু-ওয়ে রেডিও নিয়ে নানা প্রশ্ন করে থাকি। যার ফলে আমরা বিভিন্ন জনকে এই বিষয় নিয়ে প্রশ্ন করি এবং অনলাইনে এই প্রশ্নগুলোর উত্তর খোঁজার চেস্টা করি। কিন্তু এত্ত এত্ত প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে আমাদের আলাদা আলাদা ওয়েবসাইটে যেতে হয়, তার উপর এই সকল উত্তরগুলো সঠিক ও নির্ভরযোগ্য কিনা সেটাও ভাববার বিষয়।

আচ্ছা যদি ওয়াকি-টকি (walkie talkie) নিয়ে সকল প্রশ্নের উত্তর আপনি একটি নির্দিষ্ট ওয়েব পেইজ বা ওয়েবসাইটে পেয়ে যান তাহলে কেমন হবে? নিশ্চই ভালো হবে কেননা আপনাকে খুঁজে খুঁজে সব উত্তর পেতে হবে না যেহুতু এক জায়গাতেই সব উত্তরগুলো পেয়ে যাচ্ছেন। হ্যাঁ, আমরা এই পেইজটিতে বাংলাদেশে ওয়াকি-টকি ও এর ব্যবহার নিয়ে সকল প্রশ্নের উত্তর দেয়ার চেস্টা করেছি। চলুন জেনে নেই সেই প্রশ্নত্তরগুলো।

ওয়াকি-টকি কি?

ওয়াকি-টকি হচ্ছে এমনই একটি ডিভাইস যা আপনাকে নির্দিষ্ট রেঞ্জের/ কভারেজের মধ্য এক বা একাদিক লোকের সাথে তাৎক্ষনিক যোগাযোগের জন্য সহায়তা করে। এটি মুলত রেডিও ফ্রিকোয়েন্সির মাধ্যমে কাজ করে।

ওয়াকি-টকি দিয়ে সর্বোচ্চ কত কিলোমিটারের মধ্যে যোগাযোগ করা যায়?

এটি মূলত নির্ভর করে নির্ধারিত যোগাযোগ এরিয়ার উপর। যেমন খালি জায়গায় যেখানে তেমন বাধা/ব্যারিয়ার নেই সেখানে সর্বোচ্চ ১~৪ কিলোমিটারের মধ্যে কথা বলা যাবে। বিষয়টি হচ্ছে যত ফাঁকা জায়গা, ঠিক ততটায় নমণীয় যোগাযোগ। বর্তমানে যে কোন প্রতিষ্ঠান অনুমতি নিয়ে স্বাভাবিক ভাবে ১ কিলোমিটার এস বি আর ব্যন্ডে ওয়াকি-টকি ব্যবহার ও আমদানির জন্য আবেদন করতে পারে। বিটিআরসি যাচাই বাচাই করে তারপর উক্ত প্রতিষ্ঠানের নামে অনুমতি পত্র বা ডিমান্ড নোট ইস্যু করে।

তবে, আপনার যদি এই রেঞ্জ কভারেজের বাইরেও আরও বেশি এরিয়া কভারেজ করার প্রয়োজন হয়, তবে আপনি রিপিটার ব্যাবহার করে কভারেজ এরিয়া বাড়াতে পারেন। তবে রিপিটার সংযুক্ত ওয়াকি-টকির দাম একটু বেশি আমরা এই রিপিটার সেবা দিয়ে থাকি। রিপিটার ব্যবহার জন্য বিভিন্ন আইন প্রয়োগকারী প্রতিষ্ঠান থেকে ছাড় পত্র নিতে হবে।

অন্যদিকে, আপনি যদি দেশের যে কোন প্রান্ত থেকে অন্য যে কোন প্রান্তে যোগাযোগ করতে চান তাহলে আপনি আমাদের থেকে Aircom G30 মডেলের ওয়াকি-টকি নিতে পারেন। এটি মূলত সিম-কার্ড নির্ভর মডেল যা আপনাকে ন্যাশন-ওয়াইড কভারেজ দিবে এবং এটি সিম-কার্ড ডাটা/মেগাবাইট ওয়াই-ফাই (WiFi) দিয়ে ব্যবহার করা যাবে।

বাংলাদশে ওয়াকি-টকি কারা ব্যাবহার করতে পারবে?

যেকোন সরকারি-বেসরকারি বৈধ প্রতিষ্ঠান ব্যবহার করতে পারবে। এমনকি বিভিন্ন সরকারি খন্ডকালীন প্রজেক্টে এটি ব্যাবহার করতে পারবে। তবে যেই কাজেই এটি ব্যবহার করা হোক না কেন, বিটিআরসি (BTRC) থেকে অবশ্যই অনুমোদন বা লাইসেন্স নিতে হবে।

কারা ওয়াকি-টকি ব্যাবহার করতে পারবে না?

কোন ব্যক্তি তার বাক্তিগত যোগাযোগের জন্য হলেও এটি ব্যবহার করতে পারবে না। অনেকেই আবার ভেবে থাকেন হয়তবা লাইসেন্স নিয়ে নিয়ে এর ব্যবহারের অনুমোদন পাওয়া যাবে। কিন্তু না, বিটিআরসি (BTRC) বৈধ প্রতিষ্ঠান ছাড়া কাউকে এটি ব্যবহারের অনুমোদন দেয় না এমনকি কেউ যদি সরকারি কর্মচারি-কর্মকর্তাও হয় তবেও না।

বিটিআরসি কেন ব্যক্তিগত পর্যায়ে ওয়াকি-টকির অনুমোদন দেয় না?

এটি একটি অন্যতম প্রশ্ন কেননা চাইলেই যে  কেউ ওয়াকি-টকি ব্যবহার করতে পারবে না। কারণ, ওয়াকি-টকি ব্যাবহারে যোগাযোগ যতটা সহজ হয়েছে, উল্টদিকে এটি ব্যবহার করে অনেক রকমের অপরাধ ও অবৈধ কার্যকলাপ সংঘটিত হচ্ছে। তাই বিটিআরসি (BTRC) যুক্তিসঙ্গত কারণ ছাড়া ওয়াকি-টকি ব্যাবহারের নিরুৎসাহিত করে।

তবে আপনি যদি শখের বসে (হ্যাম রেডিও/এমাচার রেডিও অপারেটর) ওয়াকি-টকি ব্যবহার করতে চান তাহলে প্রতি বছর একটি নোটিশের/বিজ্ঞাপনের  মাধ্যমে  বিটিআরসি (BTRC)  পরীক্ষা আয়োজন করে যে খানে ব্যবহারিক ও তাত্ত্বিক ভাবে  পাশ করলে আপনাকে ব্যক্তিগত ভাবে অবানিজ্যিক ওয়াকি-টকির ব্যবহারের অনুমোদন দিবে। সে ক্ষেত্রে পুলিশ ভ্যরিফিকেশন নিতে হবে এটা সরাসরি একজন ব্যবহারকারি দেখভাল করবে। এইক্ষেত্রে আমরা শুধু মাত্র পন্য আমদানী করে দিতে পারব অনুমোদন হওয়ার পর।

আমার ছোট প্রতিষ্ঠান, আমি কি ওয়াকি-টকি ব্যাবহারের অনুমতি পাবো?

অনেক ছোট প্রতিষ্ঠান এবং ক্ষুদ্র ব্যাবসায়িরা এটা ভেবে চিন্তিত হন যে তারা এই ডিভাইসটি ব্যবহারের করার অনুমতি পাবেন কিনা। হ্যাঁ, যদি আপনার ব্যবসা বা প্রতিষ্ঠান বৈধ হয় এবং আপনার কাছে বিটিআরসি বরাবর আবেদন করার জন্য নির্দিষ্ট ডকুমেন্টস/প্রমাণাদি থাকে তাহলেই আপনি আবেদন করতে পারবেন। তবে অনুমোদন দেইয়া না দেয়া বিটিআরসি (BTRC) -এর এখতিয়ার।

বিটিআরসি-এর অনুমোদন পাওয়ার সম্ভাবনা কতটুকু?

যদি আপনার সকল ডকুমেন্টস/প্রমাণপত্র সঠিক থাকে এবং অন্যান্য সবকিছু সঠিক থাকে তবে অনুমোদন পাওয়ার ক্ষেত্রে কোন সমস্যা হয় না।

কি কি ডকুমেন্টস প্রয়োজন বিটিআরসি বরাবর SBR লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে?

  • পে-অর্ডার – যেকোন ব্যাংক থেকে বিটিআরসি (BTRC) বরাবর ৬,৩২৫/- পে-অর্ডার করতে হয় (একবারের জন্য, একটি প্রতিষ্ঠানের জন্য এই টাকার পরিমান নির্ধারিত), প্রতি বছর প্রতিটা ওয়াকি-টকি সেটের জন্য ৬৯০/- ফি জমা দিয়ে নবায়ন/রিনিউ করতে হবে।
  • প্রতিষ্ঠান বা ব্যবসায়ের ট্রেড লাইসেন্স।
  • টিন (TIN) সার্টিফিকেটের কপি।
  • ভ্যাট (VAT) সার্টিফিকেটের কপি।
  • জাতীয় পরিচয় পত্র এর ফটোকপি।
  • আয়কর প্রত্যয়নপত্র।
  • আবেদনপত্র
  • অঙ্গিকারনামা।
  • বিটিআরসি কতৃক ফ্রিকোয়েন্সি ফর্ম
  • নেটওয়ার্ক প্ল্যান
  • রঙ্গিন ক্যটালগ

কতদিন সময় লাগে বিটিআরসি থেকে লাইসেন্স/অনুমোদন নিস্পত্তি হতে?

সাধারণত এক মাসের মত সময় লাগে ওয়াকি-টকি লাইসেন্স পেতে। তবে এই সময় কয়েকদিন কম বা বেশিও লাগতে পারে। তবে সব ডকুমেন্ট ঠিক থাকলে লাইসেন্স পেতে কোন বাধা থাকে না।

লাইসেন্স পাওয়ার পরে কি তা আবার নবায়ন করতে হবে?

না, লাইসেন্স নবায়ন করতে হবে না, তবে প্রতিটা ওয়াকি-টকির জন্য বাৎসরিক ৬৯০/- টাকা ষ্টেশন চার্জ বাবদ প্রদান করতে হবে। উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি ১০ টি ওয়াকি-টকি সেট ব্যবহার করেন, তাহলে আপনাকে প্রতি বছরে ৬৯০*১০= ৬,৯০০/- টাকা প্রদান করতে হবে।

লাইসেন্স পাওয়ার জন্য কি বিটিআরসি-এর নির্ধারিত ব্র্যান্ড এবং কালার/ রঙ আছে?

জ্বি আছে। লাইসেন্স পাওয়ার ক্ষেত্রে আপনাকে কালো রঙের ওয়াকি-টকি ছাড়া অন্য যেকোন রঙের পছন্দ করতে হবে কেননা বিটিআরসি কালো রঙের অনুমোদন দেয় না। শুধুমাত্র সরকারি প্রতিষ্ঠান কালো রঙের গুলো ব্যবহারের অনুমতি পায়। তাছাড়া যে কোন অনুমোদিত ব্র্যান্ড হতে হবে আপনার নির্বাচিত মডেলের জন্য।

বাংলাদেশে কোন ওয়াকি-টকি ব্র্যান্ড সবথেকে ভালো?

প্রায় সকল অনুমোদিত ব্র্যান্ডগুলোই ভালো। তবে ব্যান্ডগুলোর মাঝে পারফরমেন্সের বেলায় কিছুটা কম-বেশি পার্থক্য রয়েছে। সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশে কয়েকধাপ এগিয়ে আছে এয়ারকম (Aircom) ও ভেটেক্স প্লাস (Vetexplus) ব্রান্ডের ওয়াকি-টকি।  এর পারফরমেন্স এবং স্থায়ীত্ব আপনাকে এক নতুন অভিজ্ঞতা এনে দিতে পারে।

আমার এক ফ্রিকোয়েন্সির মডেল আছে, আমি কি আরে এক ফ্রিকোইয়েন্সির সাথে তা সামঞ্জস্য করে ব্যবহার করতে পারব?

না, আপনাকে একটি নির্দিষ্ট ফ্রিকোয়েন্সির সাথে একই ফ্রিকোয়েন্সির ওয়াকি-টকি সামঞ্জস্য করে ব্যাবহার করতে হবে। যেমন, ২৪৫-২৪৬ ফ্রিকোয়েন্সির জন্য আরে এক ওয়াকি-টকি ঠিক একই ফ্রিকোয়েন্সি মানে ২৪৫~২৪৬ মেগাহার্টজ নিতে হবে।

আমি কি এক মডেলের সাথে আর এক মডেল সামঞ্জস্য করতে পারব?

হ্যাঁ, যদি একই ফ্রিকোয়েন্সির দুটি ভিন্ন মডেলের ওয়াকি-টকি হয়, তবে আপনি তা সামঞ্জস্য/ম্যাচ করে ব্যবহার করতে পারেন।

ব্যবহৃত ওয়াকি-টকি হারিয়ে গেলে কি করণীয়?

সেক্ষেত্রে আপনি  আরেকটি নতুন ওয়াকি-টকি (walkie talkie) কিনে তা অন্যান্য যেগুলো ব্যাবহার করছেন তার সাথে সামাঞ্জস্য করে নিতে পারেন। তবে নিরাপত্তার জন্য, আপনি হারিয়ে যাওয়ার কথা জানিয়ে নিকটস্থ থানায় একটি সাধারণ ডাইরি (জিডি) করতে পারেন। কেননা আপনার হারিয়ে যাওয়ার ডিভাইসটি দিয়ে কেউ কোন অপরাধ বা বে-আইনি কিছু করলেও তার দায়ভার যেন আপনার উপর এসে না পড়ে।

বাংলাদেশের কোথা থেকে ওয়াকি-টকি পাওয়া যাবে?

বাংলাদেশে অনেক প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা ওয়াকি-টকি সরবরাহ করে থাকে। তবে আপনাকে এটা নিশ্চিত করতে হবে যাদের কাছ থেকে নিচ্ছেন তারা বিটিআরসি (BTRC) কতৃক অনুমোদিত সরবরাহ/বিক্রেতা কিনা। অনুমোদনহীন কারো থেকে নিলে আপনি যে ভবিষ্যতে কোন আইনি ঝামেলায় পড়বেন না তার কোন নিশ্চয়তা নেই। আমরা বিটিআরসি কতৃক অনুমোদিত একটি প্রতিষ্ঠান যারা কিনা ২০১১ সাল থেকেই  বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে বৈধভাবে ওয়াকি-টকি সরবরাহ করে আসছে। আমরা হতে পারি আপনার প্রতিষ্ঠানের এক বিশ্বস্ত ওয়াকি-টকি সরবরাহকারী।

এমন কি কোনো সার্ভিস প্রোভাইডার প্রতিষ্ঠান আছে যারা কিনা লাইসেন্স পাওয়ার বিষয়ে সহায়তা প্রদান করতে পারে?

জ্বি আছে। আমরা আপনাকে লাইসেন্সের বিষয়ে পূর্ণাঙ্গ সহায়তা দিতে পারি। আপনি আপনার এবং আপনার প্রতিষ্ঠানের সকল প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট, পে-অর্ডার চেক (যা আপনার তরফ থেকে আমরা করে দিব)আমাদের জমা দিতে হবে। আমরা অন্যান্য কাজ প্রসেসিং/ সম্পন্ন করে সকল ডকুমেন্টগুলো বিটিআরসি (BTRC) বরাবর আবেদন করব। এবং লাইসেন্স পাওয়া পর্যন্ত আপনাকে সব আপডেট জানানো হবে। আপনি চাইলে আপনার লাইসেন্সের ট্রাকিং নম্বর দিয়ে এর বর্তমান অবস্থা জানতে পারেন বা আমাদের থেকেও তা জানতে পারেন।

সবই বুঝলাম, তাহলে আপনাদের প্রসেসিং ফি বা সার্ভিস চার্জ কত?

আমরা উল্লেখিত কার্যক্রমের জন্য ১৫,০০০/- টাকা প্রসেসিং ফি নিয়ে থাকি। মনে রাখবেন, এই টাকার পরিমান শুধুমাত্র আমাদের প্রসেসিং ফি যার মধ্যে অন্য কোন খরচ অন্তর্ভূক্ত নয়। আপনাকে লাইসেন্স ফি/ পে-অর্ডার বাবদ ৬,৩২৫/- টাকা আলাদা দিতে হবে এবং প্রতি ওয়াকি-টকির জন্য ৬৯০/- স্টেশন চার্জ প্রদান করতে হবে।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি প্রথমবারের মত ১০ টি ওয়াকি-টকি নিতে চান , তবে আপনাকে আবেদন ফি/ পে-অর্ডার বাবদ ৬,৩২৫/- (এই টাকার পরিমান একই আপনি যতগুলোই ওয়াকি-টকি নেন না কেন), ১০ টি সেটের স্টেশন চার্জ বাবদ ৬৯০*১০= ৬,৯০০/- , এবং আমাদের প্রসেসিং ফি ১৫,০০০/-,  মোট ২৮,২২৫/- আমাদের প্রদান করতে হবে। টাকার পরিমান বাড়া এবং কমা ওয়াকি-টকি সেটের সংখার উপর নির্ভর করে।

আপনারা কি বাৎসরিক স্টেশন চার্জ প্রদানের বিষয়ে সহায়তা প্রদান করেন?

জ্বি অবশ্যই করে থাকি। সেক্ষেত্রে প্রতি পিস ওয়াকি-টকির জন্য ৬৯০/- স্টেশন চার্জ এবং আমাদের প্রসেসিং ফি বাবদ ৩,৫০০/- টাকা  দিতে হবে।

উদাহরণস্বরূপ, ১০ টি সেটের জন্য ৬৯০*১০ =৬,৯০০/- এবং প্রসেসিং ফি বাবদ ৩,৫০০/- মোট ১০,৪০০/- প্রদান করতে হবে।

আমি পূর্বে আপনাদের থেকে ওয়াকি-টকি নিয়েছি, আপনারা কি পরবর্তিতে আপনাদের থেকে কেনা  নতুন মডেলের সাথে ফ্রিকোয়েন্সি সামঞ্জস্য/ম্যাচ করে দিবেন?

হ্যাঁ অবশ্যই। আমরা আমাদের ক্রেতা/ ক্লাইন্ট-এর প্রয়োজনে সবসময় পাশে আছি। এক্ষেত্রে আমরা সঠিক মডেলটি বাছাই করা সহ ফ্রিকোয়েন্সি সামঞ্জস্য করে দেই যেন আপনি পান এক বাধাহীন যোগাযোগ সুবিধা।

আপনারা ওয়াকি-টকির বিপরীতে কত দিনের ওয়ারেন্টি দিয়ে থাকেন?

আমরা আমাদের বিক্রিত সকল ওয়াকি-টকির সমস্যার বিপরীতে ১ বছর সার্ভিস ওয়ারেন্টি এবং ওয়াকি-টকির ব্যটারির জন্য ৬ মাসের ওয়ারেন্টি দিয়ে থাকি।

আমাদের সাথে ফোনে,ইমেইলে বা সরাসরি আমাদের অফিসে এসে যোগাযোগ করতে পারেন।

  • হট-লাইনঃ 01979-300940, 01719-300-940
  • Telephone: 02-55020006;
  • ইমেইলঃ info@olefins-trade.com
  • অফিসের ঠিকানা: 16/A-2, Ring Road, 5th Floor,
    Mohammadpur, Dhaka-1207, Bangladesh.

আশা করছি ওয়াকি-টকি নিয়ে আপনার এই প্রশ্নোত্তরগুলো (Walkie Talkie FAQ) খুব কাজে আসবে। উপরোক্ত চার্জ গুলো পরিবর্তনশীল। এর বাইরেও যদি আপনার কিছু জানার থাকে তাহলে আমাদেরকে ফোন করুন।

# বিভিন্ন মডেলের ওয়াকি-টকির দাম জানতে ভিজিট করুন।